ঢাকা, ২৫ জুলাই, ২০২৪
Banglar Alo

ডেঙ্গুর ঝুঁকি বেড়েছে ঈদের ছুটিতে

Publish : 10:06 PM, 21 June 2024.
ডেঙ্গুর ঝুঁকি বেড়েছে ঈদের ছুটিতে

ডেঙ্গুর ঝুঁকি বেড়েছে ঈদের ছুটিতে

নিজস্ব প্রতিবেদক :

পবিত্র ঈদুল আজহায় রাজধানী ছেড়েছেন লাখ লাখ মানুষ। শুরু হয়েছে বর্ষা মৌসুমও। ঈদের ছুটিতে নগরী খালি হয়ে যাওয়ায় ডেঙ্গু ছড়ানোর ঝুঁকি বেড়েছে। 

এ সময় ঢাকার অনেক নির্মাণাধীন ভবন, ফাঁকা বাড়ি, অফিস ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে এডিস মশার বংশ বৃদ্ধির অনুকূল পরিবেশ তৈরি হয়েছে। সিটি করপোরেশন বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও মশক নিধন কার্যক্রমে তেমন মনোযোগী ছিল না বলে অভিযোগ উঠেছে।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, ফাঁকা বাসায় জমে থাকা পানি ও নির্মাণকাজ কিছু সময়ের জন্য বন্ধ থাকায় ভবনে এডিস মশা বংশ বৃদ্ধি করবে। তাই এসব সাইট ও ভবন-সংলগ্ন স্থানগুলো খুবই ঝুঁকিপূর্ণ এবং এ বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। তাদের মতে, এখনই নগরবাসীর পাশাপাশি সিটি করপোরেশন কার্যকর ব্যবস্থা না নিলে বর্তমান পরিস্থিতিকে আরও ঝুঁকিপূর্ণ করে তুলবে বৃষ্টি।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের ১৭-২৬ এপ্রিল পর্যন্ত পরিচালিত বর্ষা-পূর্ববর্তী জরিপে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২৯টি ওয়ার্ড ও উত্তর সিটি করপোরেশনের ১২টি ওয়ার্ডে এডিস মশার লার্ভার উচ্চ ঘনত্বের সন্ধান পাওয়া গেছে।

যেসব স্থানে এডিসের লার্ভা পাওয়া গেছে, তার মধ্যে ৪২ দশমিক ৩৩ শতাংশ উঁচু ভবন, ২১ দশমিক ৬ শতাংশ পৃথক বাড়ি, ২১ দশমিক ৬ শতাংশ নির্মাণাধীন ভবন, ১২ দশমিক ৭৪ শতাংশ আধা-কংক্রিট ঘর ও ১ দশমিক ৭৩ শতাংশ খোলা জায়গা। এডিসের প্রজনন উৎসগুলোর মধ্যে প্লাস্টিকের ড্রামে ১৮ শতাংশ, মেঝেতে জমে থাকা পানিতে ১৫ শতাংশ ও প্লাস্টিকের বালতিতে ১৪ শতাংশ পাওয়া গেছে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের তথ্য অনুসারে, চলতি বছরের শুরু থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ডেঙ্গুতে সারাদেশে অন্তত ৪০ জন মারা গেছেন এবং হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ৩ হাজার ২১৮ জন।

ঢাকা দক্ষিণ সিটির (ডিএসসিসি) মালিবাগ গুলবাগ এলাকার বাসিন্দা সানজিদা শারমিন বলেন, ‘ঈদের ছুটির মধ্যে করপোরেশনের কর্মীরা বর্জ্য ব্যবস্থাপনা নিয়ে ব্যস্ত ছিলেন। এ সময়ে মশার সংখ্যা অনেক বেড়েছে।’

কীটতত্ত্ববিদ জিএম সাইফুর রহমান বলেন, ‘এবারের ঈদে প্রায় এক সপ্তাহ ছুটি ছিল, এটা এডিসের বংশ বিস্তারের জন্য যথেষ্ট। ফলে নতুন প্রজনন উৎস বৃদ্ধির আশঙ্কা অনেক বেশি। এসব দেখভালের জন্য মনিটরিং সেল থাকলে ঝুঁকি কম হতো। কিন্তু দুর্ভাগ্যবশত তা নেই।’

সাইফুর রহমান বলেন, ছুটির পর ঘরে ফিরে মশা মারার ওষুধ ব্যবহারের পাশাপাশি এডিসের প্রজনন উৎসগুলো ধ্বংস করতে হবে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও অফিসগুলোকেও বন্ধের পর খোলার আগে মশক নিধনেপ্রয়োজনীয় উদ্যোগ নিতে হবে।

এই কীটতত্ত্ববিদ বলেন, সিটি করপোরেশন এখানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতে পারে। তারা দীর্ঘ ছুটির পর ক্লাস শুরু হওয়ার আগে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মশা নিরোধক স্প্রে করতে পারে। এ বিষয়ে আরও সচেতনতা তৈরি করা খুবই প্রয়োজন।

কীটতত্ত্ববিদ কবিরুল বাশার বলেন, নির্মাণাধীন ভবন বা সংলগ্ন স্থানের বাসিন্দাদের এডিসের প্রজনন উৎস ধ্বংস করার উদ্যোগ নিতে হবে। এডিস লার্ভা ধ্বংস করার জন্য জমে থাকা পানিতে কেরোসিন বা ব্লিচিং পাউডার দেওয়া যেতে পারে।

ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের প্রধান স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ফজলে শামসুল কবির সমকালকে বলেন, ঈদের আগে পাড়া-মহল্লায়, মসজিদে নগরবাসীকে নিজ বাসাবাড়ি পরিষ্কার করে এবং কোথাও যেন পানি না থাকে, তা দেখে যাওয়ার অনুরোধ করা হয়েছে। এখনও অনুরোধ থাকবে, তারা যেন ঢাকা ফিরেই ভবনের বেজমেন্ট থেকে ছাদ পর্যন্ত প্রতিটি স্থান, কোণা ভালো করে পরীক্ষা করে দেখেন পানি জমে আছে কিনা।

তিনি বলেন, এক সপ্তাহের ছুটির মধ্যে শুধু ঈদের দিন তাদের মশক নিধন কার্যক্রম বন্ধ ছিল। তা ছাড়া ঈদের আগে ও পরে প্রতিটি দিন ফগিং ও লার্ভিসাইডিং কার্যক্রম চালু ছিল।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মীর খাইরুল আলম সমকালকে বলেন, তাদের প্রত্যেক কাউন্সিলর মশক নিধনের বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। মশক নিধন ও বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের কোনো কর্মীরও ছুটি ছিল না এই সময়ে। তা ছাড়া ঈদের ছুটির মধ্যে রাজধানীতে বৃষ্টি হয়নি। ফলে ডেঙ্গু নিয়ে আপাতত কোনো ভয় নেই।

Banglar Alo

সম্পাদক ও প্রকাশক
বাংলার আলো মিডিয়া লিমিটেড

৮৯ বিজয় নগর, শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম শরণি, আজিজ কো-অপারেটিভ মার্কেট (৫ম তলা)। ঢাকা-১০০০

নিউজঃ +৮৮ ০১৩৩২৫২৮২৪১ || [email protected] || বিজ্ঞাপণঃ +৮৮ ০১৩৩২৫২৮২৪৩ || [email protected]

©২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত || banglaralo24.com

Develop by _ DigitalSolutions.Ltd
শিরোনাম আজও ঢাকায় ৭ ঘণ্টা শিথিল থাকছে কারফিউ শিরোনাম ‘লস এঞ্জেলেসে বিক্ষোভ আয়োজনে যুক্ত পাকিস্তানি নাগরিকরা’ শিরোনাম এ ধরনের একটা আঘাতের আশঙ্কা ছিল : প্রধানমন্ত্রী শিরোনাম ৫৭ বাংলাদেশিকে বিভিন্ন মেয়াদে কারাদণ্ড আমিরাতে শিরোনাম চট্টগ্রাম বন্দরের অপারেশনাল কার্যক্রম স্বাভাবিক শিরোনাম ইন্টারনেট বন্ধ থাকায় টেলিযোগাযোগ শিল্পে ব্যবসা কমেছে ৩০ শতাংশ